logo-img

২৬, জুন, ২০১৯, বুধবার | | ২২ শাওয়াল ১৪৪০


নবীগঞ্জে আলোচিত ছিনতাইকারী সাজু ও সাহিদের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

রিপোর্টার: এম.মুজিবুর রহমান | ২২ মে ২০১৯, ০১:৫০ পিএম


নবীগঞ্জে আলোচিত ছিনতাইকারী সাজু ও সাহিদের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নে বিবিয়ানা বিদ্যুৎ পাওয়ার প্ল্যান্টের নির্মাণ কাজের ঠিকাদারী প্রতিষ্টান ‘দি বেঙ্গল ইলেক্ট্রনিক্স লিমিটেড এর অফিস থেকে ফিল্মি স্টাইলে ১২ লাখ ২৬ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় আসামী সাজু মিয়া ও সাহিদ মিয়াকে দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হবিগঞ্জ এর বিচারক তাহমিনা বেগমের আদালতে নবীগঞ্জ থানার এস.আই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কাওছার হোসেন আসামীদের ব্যাপকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এবং মূল রহস্য উদঘাটনের জন্য আসামীদের ৩দিন করে রিমান্ড আবেদন করেন। এসময় আদালত ২দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

নবীগঞ্জ থানার ওসি মো. ইকবাল হোসেন রিমান্ডের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে এঘটনার মূল হোতা ও মূল রহস্য উদঘাটন করা হবে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, গত বুধবার বিকেল ৩ টার সময় পুলিশ স্কটের মাধ্যমে কোম্পানীর কর্মচারিদের বেতন বাবদ নগদ ৭৯ লাখ ১৩ হাজার ৫২০ টাকা মৌলভীবাজার পূবালী ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে অফিসে এসে বিভিন্ন সাইডের কর্মকর্তা কর্মচারিদের মধ্যে বণ্টন করাকালীন উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের পারকুল গ্রামের আব্দুল আজিজের পুত্র সাজু মিয়া (৩০) ও একই গ্রামের রাহাত উল্লা প্রকাশ রাত উল্লার পুত্র সাহিদ মিয়া (৩৫) তাদের আরো ২ সহযোগীসহ রামদাসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দি বেঙ্গল ইলেক্ট্রনিক্স এর অফিসে প্রবেশ করে। 

মামলার বাদিসহ অফিসের অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে জিম্মি করে জোরপূর্বক ১২ লাখ ২৬ হাজার ১৫৬ টাকা ছিনতাই করে দ্রুত পালিয়ে যায়। এ সময় তারা চিৎকার করে এবং নবীগঞ্জ থানা পুলিশকে অবগত করলে একদল পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পারকুল গ্রামে দুলাল মেম্বারের বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করে সাজু ও সাহিদকে আটক করে এবং তাদের কাছ থেকে ৭ লাখ ৫৮ হাজার টাকা উদ্ধার করে। এ সময় আটককৃতরা জানায় বাকি টাকা অজ্ঞাত ২ জন নিয়ে যায়।

অপর দিকে একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, ওই এলাকার প্রভাবশালী একটি মহল ও জনপ্রতিনিধিদের নেতৃত্বে একটি সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। এ মহলটি বিদ্যুৎ পাওয়ার প্ল্যান্টে নিয়োজিত দি বেঙ্গল ইলেক্ট্রনিক্স কোম্পানীর নিকট থেকে প্রতি মাসেই মাসিক চাঁদা আদায় করে থাকেন। এমনকি পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে কোম্পানীর কাছ থেকে দীর্ঘদিন ধরে চাঁদাবাজী করে আসছেন বলেও সূত্র জানায়।