logo-img

২৪, ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, রোববার | | ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪০


গোলাপগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন নিয়ে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়যাপ

রিপোর্টার: গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি | ২৩ জানুয়ারী ২০১৯, ১০:১৩ পিএম


গোলাপগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন নিয়ে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়যাপ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হতে না হতেই আবার উপজেলা নির্বাচন নিয়ে তোড়জোড় শুরু হয়েছে। সর্ব মহলে এই মুহুর্তে একটি আলোচনা উপজেলা নির্বাচন। ফেব্রুয়ারী মাসে তফসিল ও মার্চে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছে কমিশন। এদিকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে ইতোমধ্যে সারা দেশের মত সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ উপজেলায় শুরু হয়েছে নির্বাচনী তোড়জোড়। এ উপজেলা দখলে রাখতে এবার আওয়ামীলীগ রাখতে মরিয়া। তবে নতুন মুখ আর সাবেক ছাত্রনেতাদের তোড়জোড় বেশী। আওয়ামীলীগের পাশাপাশি বিএনপি ও জামায়াতের প্রার্থী রয়েছে। জামাত ও বিএনপি প্রার্থীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে দলীয় মনোনয়ন ও সমর্থন পেতে প্রার্থীরা শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ। সম্ভাব্য প্রার্থীরা বিভিন্ন ভাবে আগাম বার্তা দিয়ে যাচ্ছেন ভোটারদের কাছে।

ইতোমধ্যে তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে নিজেদের প্রার্থীতার কথা তুলে ধরতে শুরু করেছেন। কেন্দ্র থেকে দলীয় মনোনয়ন ভাগিয়ে নিতে চালাচ্ছেন জোর লবিং। দলের শীর্ষ নেতাদের সাথে যোগাযোগও শুরু করে দিয়েছেন তাঁরা।

এবার প্রথম বারের মত উপজেলা নির্বাচন দলীয় প্রতিকে অনুষ্ঠিত হবে। বড় বড় রাজনৈতিক দলগুলো উপজেলা নির্বাচনে তাদের দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। 

ইতোমধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান পদে কে কে প্রার্থী হতে চান, তা নিয়ে শুরু হয়েছে আলোচনা ও গুঞ্জন। অনেকেই দলীয় মনোনয়ন চাওয়ার বিষয়টি জানান দিচ্ছেন।

আসন্ন উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যান পদে প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে মাঠে সম্ভাব্য প্রার্থীদের যাদের নাম জোরেশোরে শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, আওয়ামী লীগ থেকে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান হুমায়ূন ইসলাম কামাল, গোলাপগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের কার্যকরী কমিটি’র সদস্য, ৯০ দশকে সিলেট শহর ছাত্রলীগ এর সাবেক যুগ্ম আহবায়ক সাংবাদিক আব্দুল লতিফ নুতন,গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আকবর আলী ফখর। 

এদিকে বিএনপির বিএনপি ঘরানার প্রার্থীদের মধ্যে মাঠে তৎপর রয়েছেন জেলা বিএনপির উপদেষ্টা এডভোকেট মাওলানা রশিদ আহমদ, উপজেলা বিএনপির সভাপতি, লক্ষণাবন্দ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নছিরুল হক শাহিন, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক, ভাদেশ্বর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জিলাল উদ্দিন, গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নোমান উদ্দিন মুরাদ।

বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা জামায়াতের আমীর হাফিজ নজমুল ইসলাম।


এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে সম্ভাব্য প্রার্থীগণ অধিকাংশই বয়সে তরুন। তাদের মধ্যে বেশ আলোচনায় রয়েছেন গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি আব্দুল আহাদ, বাদেপাশা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান রেহান উদ্দিন রায়হান, আওয়ামী লীগ নেতা রুমেল সিরাজ,গোলাপগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দিপন।

এদিকে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে যাদের নামে শোনা যাচ্ছে তাদের মধ্যে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক রোকিয়া আক্তার চৌধুরী, স্বতন্ত্র প্রার্থী মুনিয়া ইসলাম মনি প্রমুখ।

এ ব্যাপারে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হুমায়ুন ইসলাম কামাল জানান, বিগত নির্বাচনে আমি উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছিলাম। এর আগে উপজেলা পরিষদের প্রথম ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী হয়েছিলাম। জনগণের ভালবাসা নিয়ে এবার আমি নৌকার মাঝি হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে প্রত্যাশী। আশা করছি দলও আমায় মূল্যায়ন করবে।

কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের কার্যকরী কমিটি’র তিন বারের সদস্য সাংবাদিক আব্দুল লতিফ নুতন এ প্রতিবেদককে জানান, এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকার মাঝি হতে তৃর্ণমূল আওয়ামীলীগের পাশাপাশি কেন্দ্রের জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছি। নৌকার মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে তিনি আশাবাদী বলেও জানান।

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি আব্দুল আহাদ বলেন, দীর্ঘ দুই যুগ ধরে সাংবাদিকতা পেশায় নিয়োজিত আছি। বিভিন্ন সময় সমাজের অন্যায়, অবিচার সমাজের কাছে তুলে ধরেছি। সমাজের দুঃখী অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করতে নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন বলে জানান তিনি।

প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ জনসংখ্যা অধ্যুষিত ১১টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত গোলাপগঞ্জ উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ২লক্ষ ২২হাজার ৫শত জন।