logo-img

২১, নভেম্বর, ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১


নিম্নমানের ‘এ ক্যাপসুল’ কিনতে বাধ্য করেছে ভারতীয় কোম্পানি!

রিপোর্টার: নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৮ জানুয়ারী ২০১৯, ০৭:৪৮ পিএম


নিম্নমানের ‘এ ক্যাপসুল’ কিনতে বাধ্য করেছে ভারতীয় কোম্পানি!

আদালতে মামলা করে ভারতের এক অখ্যাত প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে নিম্নমানের ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল কিনতে বাধ্য করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান। তিনি বলেন, 'ক্যাপসুলের মান নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় শনিবারের ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন আপাতত স্থগিত করা হয়েছে।'

শুক্রবার দুপুরে কিশোরগঞ্জ সার্কিট হাউজে সরবরাহ করা ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুলের নমুনা পর্যবেক্ষণের সময় উপস্থিত গণমাধ্যম কর্মীদের এসব কথা বলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান।


প্রতিমন্ত্রী বলেন, 'আদালতে মামলা দায়ের করে নিম্নমানের ওই ক্যাপসুল কিনতে বাধ্য করা হয়েছে। বাচ্চাদের জন্য সরবরাহ করা ক্যাপসুলগুলো কৌটার সঙ্গে লেগে আছে। আলাদা করতে ঝামেলা হচ্ছে। অবশ্যই এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।'


তিনি বলেন, 'যে কোম্পানি থেকে ক্যাপসুল সরবরাহ করা হয়েছে তাদের কোনো সুনাম নেই। লাল ক্যাপসুলগুলো নিয়ে অভিযোগ আছে। পরীক্ষার পর বিষয়টি স্পষ্ট বলা যাবে। তবে আমাদের দেশীয় প্রতিষ্ঠান থেকে ক্রয় করা সবুজ রঙের ট্যাবলেটগুলোতে কোনো সমস্যা পাওয়া যায়নি।'


ডা. মো. মুরাদ হাসান আরো বলেন, 'শিশুদের ব্যাপারে আমরা কোন ঝুঁকি নিতে চাইনি। ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ার পর শিশুদের কোনো প্রকার যেন সমস্যা না হয়-এজন্য কর্মসূচিটি স্থগিত করা হয়েছে। তবে অল্প সময়ের মধ্যেই এ প্লাস ক্যাম্পেইন শুরু হবে।'

এ সময় প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে জেলা প্রশাসন সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) তরফদার মো. আক্তার জামিল, সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমানসহ জেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।


এর আগে পূর্বনির্ধারিত আগামী শনিবারের জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন স্থগিত করা হয়। তখন জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের মুখপাত্র এবং ক্যাম্পেইনের ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার গাজী আহমেদ হাসান তুহিন বলেছেন, 'ক্যাপসুলে গুণগত মানে সমস্যা থাকায় এমনটি করা হচ্ছে। বাচ্চাদের জন্য আনা লাল এবং নীল ক্যাপসুলগুলো একটির সঙ্গে আরেকটা কিছুটা লেগে যাচ্ছে। বিষয়টি আমাদের কাছে স্বাভাবিক মনে হয়নি। ফলে ক্যাম্পেইন প্রোগ্রাম আপাতত স্থগিত রাখা হয়েছে।'


কর্মসূচি অনুযায়ী শনিবার দেশব্যাপী ৬ মাস থেকে ৫ বছর বয়সী শিশুদের ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইনের আওতায় ক্যাপসুল খাওয়ানোর কথা ছিল। এই ক্যাম্পেইনের আওতায় প্রায় ২ কোটি ১৯ লাখ শিশুকে এই ক্যাপসুল খাওয়ানো হতো।