logo-img

২১, অক্টোবর, ২০১৯, সোমবার | | ২১ সফর ১৪৪১


শিক্ষাবাণিজ্য ও আজকের শিক্ষক

রিপোর্টার: ফাতিহুল কাদির সম্রাট | ১৭ জানুয়ারী ২০১৯, ১০:২৭ এএম


শিক্ষাবাণিজ্য ও আজকের শিক্ষক

গল্পটা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পড়া। হয়তো কাল্পনিক। কিন্তু শিক্ষক ও শিক্ষকতার স্বরূপ বুঝতে যথার্থ। এক ভদ্রলোক গণিতবিদ্যায় অসাধারণ এক কীর্তি গড়ে দুনিয়াজোড়া খ্যাতি অর্জন করেছেন। তাকে ভাবা হচ্ছে আইনস্টাইনের কাছাকাছি মেধাসম্পন্ন। অভিনন্দন ও সংবর্ধনায় ভাসছেন। তিনি যে স্কুলের ছাত্র ছিলেন সেখানেও তাকে সংবর্ধিত করা হচ্ছে। মানপত্র, পুষ্পস্তবক, প্রশংসাবাণীর সয়লাব শেষে সেই মানুষটির কিছু বলার পালা। ডায়াসে দাঁড়িয়ে তিনি বললেন, আপনারা আমাকে যা জানছেন, যা ভাবছেন, আমি আসলে তার কিছুই না। আমি গণিতে মহাপণ্ডিত নই, আসলে মহামূর্খ। আমি গণিতের কিছুই জানতাম না, জানি না। 

লোকজন মুখ চাওয়াচাওয়ি করে। তিনি বলতে থাকেন, স্কুলে আমি গণিতে ছিলাম সবচেয়ে খারাপ। ক্লাস ফোর পর্যন্ত গণিতের খাতায় দুই অঙ্কের নম্বরও পাইনি। ফাইভে পেয়ে বসলাম গোল্লা। স্কুল থেকে টিসি দেওয়ার উদ্যোগ। এর মধ্যে বাঘা বাঘা হাউস টিউটর ফেল করেছেন। বাবা-মার ঘুম হারাম। আমার কাকা এসে বাবাকে বললেন, তিনি শেষ চেষ্টা হিসেবে একজন পাগলাটে টিউটর এনে দিতে চান। বাবা রাজি হলেন। কাকাই স্কুলে গিয়ে টিসি আটকালেন। একদিন বিকেলে কাকা সেই মাস্টারকে বাড়িতে নিয়ে এলেন। মাস্টারকে দেখে আমার ভিরমি খাওয়ার অবস্থা। অযত্নে লালিত তেলহীন চুল। দাড়ি-গোঁফ ক্ষুর দেখে না কতদিন কে জানে! চেহারা রোগা ও রুক্ষ। মোটরের টায়ারের চটি পায়ে। খদ্দরের ফতুয়াটা ময়লা। কাঁধে ঝুলানো ব্যাগটা জাদুঘরে রাখার উপযোগী। ছেঁড়া অংশ দিয়ে একগুচ্ছ কাগজ ময়লা দাঁতের মতো বেরিয়ে আছে।

হাল-ছাড়া ভাব বাবার মধ্যে। তবু তিনি আমাকে ডাকলেন। পরিচয় পর্ব শেষ। স্যার বললেন, আপনারা একটু যান। আমি আমার ছাত্রের সঙ্গে একা কিছু কথা বলব। সবাই চলে গেলে স্যার ঘরের দরজা আটকে দিলেন। আমি ভয় পেয়ে গেলাম। পাগলে আবার কী না করে বসে! হঠাৎ স্যার আমার হাত দুটি শক্ত করে ধরে বসলেন। তার পর তিনি করুণ সুরে বললেন, বাবা, তুমি আমাকে বাঁচাও। তুমিই আমাকে বাঁচাতে পারবে। কথা দাও, বাঁচাবে কিনা? আমি এবার নিশ্চিত হলাম- এ লোক পাগল শুধু নয়; বদ্ধ পাগল। স্যার বলেন, আমি গণিতের গ-ও জানি না। কিন্তু টিউশনিটা আমার খুব দরকার। টিউশনিটা পেলে আমি দু-মুঠো খেয়ে বাঁচব, নইলে অনাহারে মারা যাব। তুমি আমার অজ্ঞতাকে গোপন করে যাবে। আমি এর মধ্যে কিছু পড়াশোনা করব, তুমিও করবে। তোমার চেষ্টা এবং আমার টিউশনি দুটিই চলুক। পরেরটা পরে বোঝা যাবে। বিপদ থেকে মুক্তির জন্য আমি রাজি হয়ে গেলাম তার কথায়।

সন্ধ্যার দিকে স্যার আসেন। এসেই করুণ দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকিয়ে বলেন, বাবা, আমার টিউশনিটা আছে তো? কয়েক দিনে স্যারের চেহারাটা একটু ফিরে গেল আমাদের বাসার নাশতা-পানি পেয়ে। স্যার গণিত বোঝানোর বদলে প্রতিদিন চিরকুটে করে নতুন নতুন অঙ্ক লিখে আনেন। সমাধান তার জানা নেই। আমি সেই অঙ্ক নিয়ে বন্ধুদের কাছে যাই, স্যারদের শরণাপন্ন হই। নিজে নিজে সল্‌ভ করে গাইড বইয়ের উত্তরের সঙ্গে আমার উত্তর মিলাই। স্যার এবার অঙ্কের প্রতিযোগিতা খেলা শুরু করলেন। একই অঙ্ক তিনিও করেন, আমিও করি। বইয়ের সঙ্গে রেজাল্ট মিলিয়ে যদি দেখি আমি পেরেছি, তাহলে 'ওয়াও' বলে উদ্বাহু নাচতে থাকি। স্যারও নাচতে থাকেন। বলা বাহুল্য, কোনোদিনই স্যারের উত্তর সঠিক হয় না। স্যার যথারীতি আমার হাত ধরে আকুতি জানান চাকরিটা রক্ষা করার। কয়েক দিনে স্যারের প্রতি একটা মায়ার ডোর তৈরি হলো। তার চাকরি ও জীবন বাঁচাতে আমি অঙ্কে জীবন বাজি রাখলাম। অল্প সময়ের মধ্যে বুঝলাম, আমার সামনে থেকে আঁধারের আবরণটা ফিকে হয়ে যাচ্ছে। আলোর রেখা স্পষ্ট হয়ে উঠছে।

এল ষাণ্মাসিক পরীক্ষা। গণিতে ৫০ পেয়ে গেলাম। স্যাররা অবাক। আমি কলার উঁচিয়ে স্যারদের বললাম, দেখেছেন কী! বার্ষিকে একশ'তে একশ' কনফার্ম। স্যারদের কেউ বললেন, হুঁ, একশ'! কত পাগল দেখলাম! আমি দম্ভের সঙ্গে বলে বসলাম, বাজি! বার্ষিক পরীক্ষার ফল আনতে গেছি স্কুলে। আমাকে নিয়ে রীতিমতো জটলা। স্যারদের চোখ কপালে। কীভাবে সম্ভব! সত্যি একশ'তে একশ' পেয়েছি। দৌড়ে বাড়ি এলাম। হাতের উঁচানো রেজাল্ট কার্ড আমার বিজয় নিশান। আমার রেজাল্টে বাবা তেমন উচ্ছ্বসিত হলেন বলে মনে হলো না। তিনি বললেন, চলো তোমার মাস্টারকে খবরটা দিয়ে আসি। বাবা আমাকে সঙ্গে নিয়ে হাজির হলেন এক হাসপাতালে। কোনার এক বেডে স্যারের স্যালাইন চলছে। বাবা স্যারের কানের কাছে মুখ নিয়ে আমার রেজাল্টের কথা বললেন। স্যার চোখ মেলে তাকালেন। তার মুখে এক স্বর্গীয় খুশির রেখা। বাবাকে তিনি শুধু বললেন, মনে থাকবে তো আমার অনুরোধ? সময়মতো ওকে জিনিসটা দেবেন কিন্তু।

দিন দুই পর স্যারের মৃত্যুর খবর এলো। এর মধ্যে গণিত আমার কাছে পানির মতো হয়ে গেছে। আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিতে পড়ছি। বাবা একদিন স্যারের সেই ছেঁড়া ব্যাগটা আমাকে দিয়ে বললেন, তোমার স্যার তার জীবন-যৌবন বিসর্জন দিয়ে যে কাজটি করতে গিয়ে শেষ করতে পারেননি, সেটা শেষ করার দায়িত্ব তোমাকে দিয়ে গেছেন। তিনি বলেছেন, 'গণিতে শূন্য পাওয়া একমাত্র আমার এই ছাত্রই পারবে আমার গবেষণাকে সম্পূর্ণ করতে।'

আমি সেই ময়লা কাগজগুলো খুলে প্রথমে মাথামুণ্ডু কিছুই বুঝতে পারলাম না। পরে বুঝলাম, মৌলিক সংখ্যার ওপর তিনি এমন একটি গবেষণা প্রায় শেষ করার পথে ছিলেন, যা আজ পর্যন্ত কেউ করেনি। আমি আবার সেই স্কুলজীবনে ফিরে গেলাম। স্যারকে বাঁচাতে হবে, স্যারের অনুরোধ রাখতেই হবে। অল্প কিছু দিনেই আমি গবেষণাটি শেষ করলাম। আমার নামে এটা প্রকাশিত হলো জার্নালে। চারদিকে পড়ে গেল শোরগোল। পুরস্কার-পদবিতে আমি ভাসলাম। এবার আপনারাই বলুন, আমি এত প্রশংসার যোগ্য কিনা? হলঘরে পিনপতন নীরবতা। 

এই গল্পে প্রকৃত শিক্ষকের স্বরূপ নিহিত। শিক্ষকের কাজ শিক্ষার্থীকে বিদ্যার্জনের পথ দেখানো, তার উৎসাহের জগতে বান ডাকানো এবং সম্ভাবনা শক্তিকে জাগানো। প্রতিটি শিক্ষার্থীর ভেতর অমিত সম্ভাবনা লুকিয়ে থাকে। সেটা তাকে দিয়েই আবিস্কারের আয়োজন করা শিক্ষকের কাজ। তাকে আত্মবিশ্বাসী করে তোলাই শিক্ষকের আসল কাজ।

সাহিত্যিক প্রমথ চৌধুরী অসাধারণ সব কথা বলে গেছেন এ বিষয়ে। তার মতে, বিদ্যা দান আর গ্রহণের উপকরণ নয়। শিক্ষক যেমন দাতাকর্ণ নন, তেমনি শিক্ষার্থীরা জ্ঞানভিখিরি নয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে শিক্ষকের ভাঁড়ারই যখন শূন্য থাকে, তখন দাতাকর্ণ বা হাতেমতায়ী সাজা ভণ্ডামি বলেই পরিগণিত হতে বাধ্য। আধুনিককালে শিক্ষা বা বিদ্যা বড়জোর শেয়ারিংয়ের জিনিস হতে পারে; দানের নয়। আমাদের দেশে বিশাল ক্লাসরুমে শিক্ষকের একমুখী বিদ্যাবর্ষণ আর যা-ই হোক শিক্ষার্থীর শিক্ষার জন্য স্বাস্থ্যপ্রদ নয়। মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য তো নয়ই। প্রমথ চৌধুরী শিক্ষককে বলেছেন উত্তর সাধক আর ছাত্রকে বলেছেন সাধক। উত্তর সাধকের কাজ সাধকের সাধনার আয়োজন করা, পরিবেশ নির্বিঘ্ন করা। সিদ্ধিলাভ করতে কঠোর সাধনা করতে হয় সাধককেই। শিক্ষকের ভূমিকা শিক্ষার্থীর জ্ঞান সাধনার আয়োজন করা; জ্ঞান গিলিয়ে দেওয়া নয়। জোর করে বিদ্যা গেলানোর ফল ভালো হয় না। জোর করে গুরুপাচ্য খাবার গেলানো হলে শিশুর যেমন স্বাস্থ্যহানি ঘটে, তেমনি জোর করা বিদ্যা মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ডেকে আনে বিপদ। আমাদের দেশের প্রায় সব শিক্ষক এই জোরাজুরিতে জবর পারঙ্গম। তাদের জোরাজুরিতে শিক্ষার্থীর মানসিক ভগ্নস্বাস্থ্য কখনোই আর উদ্ধার করা সম্ভব হয় না। আত্মবিকাশহীন শিক্ষিত শ্রেণির ভিড় তাই সমাজে বাড়ছে।

নানা কারণে আমাদের দেশের শিক্ষা জবরদস্তিপ্রবণ। ফলে তা আনন্দহীন। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার মুখ্য উদ্দেশ্য চাকরি শিকারি ও পেশাজীবী তৈরি করা। এ ক্ষেত্রে ভালো ফল প্রধান অস্ত্র। ফলে ভালোমানুষ তৈরির উদ্দেশ্য শিক্ষা থেকে এখন বহু দূরে। ভালোমানুষ তৈরি আদতে সম্ভবও নয়। কারণ ভালো শিক্ষক আজ বিলুপ্তপ্রায়। শিক্ষকতা পেশা থেকে নানা কারণে ব্রত-আদর্শ হারিয়ে গেছে। ফলে মেধাবী ও ভালোমানুষরা শিক্ষক হচ্ছেন না। আবার শিক্ষক হয়েও ভালোমানুষ থাকছেন না অনেকে। একালে সবকিছু প্রয়োজনতাড়িত। শিক্ষার প্রয়োজন ভিত্তি এখন এ-প্লাস। ফলে শিক্ষকরা এ-প্লাসের ঠিকাদার হয়ে গেছেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শ্রেষ্ঠত্বের মানদণ্ড যেখানে পাসের হার আর এ-প্লাস, সেখানে এই এ-প্লাসমুখী উদ্বাহু প্রতিযোগিতা অনিবার্য। এ প্লাসের নিশ্চয়তার সঙ্গে সঙ্গত কারণেই বাণিজ্যের একটা যোগসূত্র সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষাবাণিজ্যের এই বলয়ে শিক্ষকরা হয়ে গেছেন টেকনিক মাস্টার। শিক্ষার্থীদের তারা এ-প্লাস পাওয়ার টেকনিক শেখান মাত্র। শিক্ষাবাণিজ্যের জগতে যার ছাত্র যত বেশি এ-প্লাস পায়, তিনি তত সফল শিক্ষক। ফলে এ-প্লাস পেয়ে কোনো ছাত্র যখন 'আই অ্যাম এ-প্লাস' বলে, তখন আর হতবাক হয় না কেউ।

শিক্ষাবাণিজ্যের সর্বগ্রাসী প্রভাবে অনেক শিক্ষক এখন শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করেন, ভীতির মুখে ঠেলে দেন। হাতুড়ে ডাক্তাররা যেমন মামুলি অসুখকে জটিল রোগ বানিয়ে আশু মৃত্যুর দুঃস্বপ্নে রোগীকে ভীতিরাজ্যে ঠেলে দেয়, তেমনি অনেক শিক্ষক সহজ বিষয়কে জটিল করে তোলেন। শিক্ষার্থীর আত্মবিশ্বাস ও সম্ভাবনাশক্তিকে খর্ব করতে 'তোমার দ্বারা কিছুই হবে না' ধরনের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন। ফলে শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের দরবারে ছোটে নিদানের জন্য। ঢাকার একটি প্রখ্যাত প্রতিষ্ঠানের একজন শিক্ষক আমার কাছে প্রায়শ ধরনা দিতেন এমন কিছু দুর্বোধ্য প্রশ্ন লিখে দিতে, যা ছাত্রদের ধারণারও বাইরে। এই দুর্বোধ্যতা খেলার পেছনে রহস্যটা মোটেই দুর্বোধ্য নয় কিন্তু। ছাত্ররা যত কম বুঝবে, শিক্ষকের ভাঁড়ার তত পূর্ণ হবে। তাই না-বোঝানো আর না-বোঝার রহস্যজাল সৃষ্টি হয়েছে শিক্ষার জগতে।

এখনও কিছু ব্রতচারী শিক্ষক যে নেই তা নয়, কিন্তু তারা বিলুপ্তপ্রায় শ্রেণির প্রতীক মাত্র।

সহযোগী অধ্যাপক, বাংলা 
লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ