logo-img

২০, অক্টোবর, ২০১৯, রোববার | | ২০ সফর ১৪৪১


‘তৃতীয় সাবমেরিন কেবলে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ’

রিপোর্টার: অনলাইন ডেস্ক | ১৭ জানুয়ারী ২০১৯, ১০:১৯ এএম


‘তৃতীয় সাবমেরিন কেবলে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ’

ক্রমবর্ধমান ইন্টারনেটের চাহিদা মেটাতে কনসোর্টিয়ামের মাধ্যমে তৃতীয় সাবমেরিন কেবলে যুক্ত হবে বাংলাদেশ। বুধবার বিকেলে রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে এ কথা জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

অনুষ্ঠানে ফোরজি এলটির মাধ্যমে কথা বলে রবির নতুন প্রযুক্তি ভিওএলটিইর পরীক্ষামূলক উদ্বোধন করেন তিনি। বাংলাদেশে রবিই প্রথম সর্বাধুনিক এই প্রযুক্তি নিয়ে আসছে। 

এ সময় আরও বক্তব্য দেন বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক এবং রবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহতাব উদ্দিন আহমেদ। সঞ্চালনা করেন রবির ভাইস প্রেসিডেন্ট (জনসংযোগ) ইকরাম কবীর।

মোস্তাফা জব্বার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জানান, বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহার দ্রুত বাড়ছে। ২০০৮ সালে মাত্র ৮ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ ব্যবহার হলেও বর্তমানে ব্যবহৃত হচ্ছে ৯০০ জিবিপিএস-এর বেশি। ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে আরও ব্যান্ডউইথ অর্জনের বিকল্প নেই। এ কারণেই বাংলাদেশ তৃতীয় আরেকটি সাবমেরিন কেবলে সংযুক্ত হওয়ার প্রকল্প নিয়েছে। এরই মধ্যে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া-মধ্যপ্রাচ্য-পশ্চিম ইউরোপ (সি-মি-উই)-৬ নামে নতুন একটি সাবমেরিন কেবল কনসোর্টিয়াম গঠনের আন্তর্জাতিক উদ্যোগ চলছে। বাংলাদেশ এই কনসোর্টিয়ামের মাধ্যমেই তৃতীয় সাবমেরিন কেবলে যুক্ত হবে। এর আগে বাংলাদেশ সি-মি-উই-৪ এবং সি-মি-উই-৫ সাবমেরিন কেবল কনসোর্টিয়ামে যুক্ত হয়েছে।

সংশ্নিষ্ট সূত্র জানায়, সি-মি-উই-৬ কনসোর্টিয়াম গঠনের জন্য এর আগের দুটি কনসোর্টিয়ামে যুক্ত দেশগুলোকে মূল উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। ১৮ জানুয়ারি হনুলুলু হাওয়াইতে নতুন কনসোর্টিয়াম গঠনের জন্য প্রথম বৈঠক হবে। এ বৈঠকের মাধ্যমে এ কনসোর্টিয়ামে অন্তর্ভুক্ত হতে বিনিয়োগের শর্ত, সাবমেরিন কেবলের সক্ষমতার পরিধিসহ অন্যান্য কর্মপরিকল্পনা চূড়ান্ত হবে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কনসোর্টিয়াম গঠনের পরবর্তী পদক্ষেপ বাস্তবায়িত হবে।

অনুষ্ঠানে রবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, ভিওএলটিই হচ্ছে ফোরজি নেটওয়ার্কে নিরবচ্ছিন্নভাবে ভয়েস কল সেবা দেওয়ার প্রযুক্তি। এই প্রযুক্তিতে রবি নেটওয়ার্কে গ্রাহকেরা হাই ডেফিনেশন ভয়েস কল সেবা এবং দ্রুততর কল সংযোগ উপভোগ করতে পারবেন। এর ফলে ফোরজিতেই পৃথকভাবে ডাটা ও ভয়েস কল সেবা দেওয়া যায়। অর্থাৎ, নতুন এই প্রযুক্তি চালু হলে ভয়েস কল এবং ইন্টারনেট সেবা ফোরজি প্রযুক্তিতেই দেওয়া সম্ভব হবে। এর ফলে ভয়েস কলের ক্ষেত্রে ইন্টারনেট সংযোগ বিঘ্নিত হবে না। 

তিনি আরও জানান, এই প্রযুক্তিতে স্মার্টফোনে ৪০ শতাংশ ব্যাটারি খরচ কম হবে। তিনি জানান, রবি এই সেবা দিতে প্রস্তুত, এখন শুধু আন্তঃসংযোগে কিছু প্রক্রিয়াগত বিষয় সম্পন্ন হলেই গ্রাহক পর্যায়ে এই সেবা পৌঁছে যাবে। এই প্রযুক্তি উপভোগ করতে গ্রাহকদের উপযুক্ত হ্যান্ডসেট ব্যবহার করতে হবে।