logo-img

২১, এপ্রিল, ২০১৯, রোববার | | ১৫ শা'বান ১৪৪০


শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙালেন অধ্যক্ষ

রিপোর্টার: নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৩:২৮ পিএম


শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙালেন অধ্যক্ষ

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রভাতী শাখার শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তির দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পানি পান করিয়ে অনশন ভাঙালেন প্রতিষ্ঠানটির সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) হাসিনা বেগম।
রোববার দুপুর পৌনে ১টার দিকে প্রতিষ্ঠানটির বেশকিছু শিক্ষককে নিয়ে গেটের বাইয়ে এসে ‘অনশন’ কর্মসূচি পালন করা শিক্ষার্থীদের পানি পান করান তিনি।

এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমাদের প্রতি ভালোবাসার টানে তোমরা আন্দোলনে নেমেছো। তোমাদের এই ভালবাসায় আমরা অনেক খুশি হয়েছি। কিন্তু আমরা ক্লাসে বসে থাকবো আর তোমরা ক্লাস বর্জন করে বাইরে বসে অনশন করবে তা হতে পারে না। অনশন করতে হয় সবাই একসাথে কবরো।’
তিনি আরও বলেন, ‘যেহেতু বিষয়টি আইনি প্রক্রিয়ায় রয়েছে তাই আইনিভাবে এটি মোকাবেলা করা হবে। আইনের প্রতি আমাদের পূর্ণ আস্থা রয়েছে। এ অবস্থায় তোমরা যদি আন্দোলন অব্যাহত রাখ তাহলে বিষয়টি প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুণ্ন করবে।’

পরে তিনি শিক্ষার্থীদের পানি পান করিয়ে অনশন ভাঙান এবং অন্যান্য শিক্ষকদের সহযোগিতায় তাদের প্রতিষ্ঠানের ভেতরে নিয়ে যান।

এর আগে রোববার সকাল ১০টা থেকে শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তির দাবিতে প্রতিষ্ঠানটির মূল ক্যাম্পাসের গেটের সামনে বসে প্রায় দু’শ শিক্ষার্থী ‘অনশন’ কর্মসূচি পালন করে। এছাড়া দুপুরে দাবি-দাওয়া নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের কাছে একটি স্মারকলিপিও জমা দিয়েছে তারা।

উল্লেখ্য, অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনায় তার বাবার দায়ের করা মামলায় গত বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনাকে কারাগারে পাঠানো হয়।
এর আগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মেনে ভিকারুননিসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, শাখাপ্রধান জিনাত আখতার ও অরিত্রীর শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনাকে বরখাস্ত করা হয়।

প্রসঙ্গত, অরিত্রির বিরুদ্ধে স্কুল কর্তৃপক্ষ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নকলের অভিযোগ এনেছিল। এ জন্য অরিত্রীর মা-বাবাকে ডেকে নেন ভিকারুননিসার অধ্যক্ষ। পরে তাদের নানাভাবে অপমানের অভিযোগ উঠে।

এই ঘটনার জেরে বাসায় এসে অরিত্রি আত্মহত্যা করেন।